Class 9 5th week Assignment 2022

1
Class 9 5th week Assignment 2022

Class 9 5th week Assignment 2022 has been published. This assignment is published today. English, Chemistry, Business Entrepreneurship, and Geography and Environment subjects have been selected for this week. Students will create assignment solutions for two subjects and submit them to their respective schools.

Last Week Assignment: Class 9 4th week Assignment 2022

Institutional activities have been closed in Bangladesh for a long time. In this situation, assignment activities have been started to keep the students connected with education. Through this the Class Eight syllabus will be completed. Students are being given two assignments every week. Students are writing their answers and submitting them to their respective schools. Already 16 assignments have been published for Class 9 students. Assignments will continue to be published every week.

Class 9 5th week Assignment 2022

Class 9 5th week assignment 2022 has been published on 22 February 2022. This week's assignment activities will start on 22 February 2022. It will continue for a week. The 5th week assignment will be published at the end of the 5th week assignment.

Class 9 5th week Assignment 2022

Class 9 5th week English Assignment 2022

Class Nine 5th Week English Subject Assignment 2022
Class 9 5th week English Assignment 2022

Class 9 5th week English Assignment Answer 2022

Class Nine 5th Week English Subject Assignment Answer 2022
উত্তর সমূহ

“Benefits of pastimes”

List of 10 popular pastimes of our generation:
Drawing
Photography
Physical Exercise
Reading
Gardening
Watching TV
Internet Browsing
Chess
Beauty & Style
planting tree
Drawing: Drawing is energy for individuals, all things considered. Yet, the work event for alumni of workmanship sodalities isn’t to the point of drawing in brilliant researchers.
Photography: Commonly back photography was a genuinely less famous hobbyhorse in our country. However, the content has completely changed with the crush of android versatile inclination. You don’t without a doubt require a camera to be a cameraman. Selfies are habitually thorny to a few of us.
Physical Exercise: Physical exercise does not get proper attention from us although we all are well-apprehensive of the fact that Health is Wealth. And the key to good health is exercise. Contemplation is getting more and more popular in our country day by day. We should at least try to walk a little every day.
Reading: Perusing has lost elegance with the presence of advanced inclination. Most of us profess to pursue a ton, however actually, we don’t pursue that much that we definitely should do.
Gardening: Planting is without a doubt, generally excellent actual work yet, in addition, a decent kind of revenue and backing for our families. It’s a customary and well-known side of interest across the globe. Yet. today where a real estate parcel is scant for playing, a considerable lot of us can’t fulfil our adoration for this side interest.
Watching TV: Television is the most well-known interest in Our country. It has a novel instructive angle moreover. A few of us invest our important energy watching modest and negligible projects or television.
Internet Browsing: Web perusing is in the remainder of my rundown and it’s likewise my _ most loved side interest. It’s a need of the present day. I mean utilising the web intentionally. Dissimilar to my schoolmate, I attempt to ride the net for information. Today I utilised it to peruse and compose my class task and during the pandemic, it kept us associated. It involves grave worry with our age that we are burning through our time for gaming, talking, superfluous mingling, and vlogging. I truly appreciate and gain some significant knowledge from the free articles of papers written in brilliant English on the web.
Chess: Chess is known as the round of prodigies. Be that as it may, it is a decent device of mental health for all of us. This game is an indoor game why a considerable lot of us really try to avoid it.
Beauty & Style: Most of us at this age are more or less passionate about beauty & style. It’s like keeping ourselves up to date with time and the world. A person who is careless about his/her fashion and style is called uncouth.
Planting Tree: The individuals who can’t go cultivating attempt to do tub ranch. This is famous in the metropolitan region where individuals don’t have the chance of cultivating. These days it has turned into a decent business to supply tub plants in workplaces and markets.

Class 9 5th week Chemistry Assignment 2022

Class Nine 5th Week Chemistry Subject Assignment 2022
Class 9 5th week Chemistry Assignment 2022

Class 9 5th week Chemistry Assignment Answer 2022

Class Nine 5th Week Chemistry Subject Assignment 2022
Class 9 5th week Chemistry Assignment Answer 2022

Class 9 5th week Business Entrepreneurship Assignment 2022

Class Nine 5th Week Accounting Subject Assignment 2022
Class 9 5th week Business Entrepreneurship Assignment 2022

Class 9 5th week business Entrepreneurship Assignment Answer 2022

Class Nine 5th Week Accounting Subject Assignment 2022
উত্তর সমূহ
ক. ব্যবসায়ের ধারণা ব্যাখ্যা করতে হবে।
উত্তর:
সাধারণত মুনাফারক উদ্দেশ্যে কপরিচালিত, কনিয়ন্ত্রিত সকল অর্থনৈতিক ককর্মকান্ডকে কব্যবসায় বলে। গত কয়েকদিন আগে কআমি মাঠে কখেলতে গিয়ে ককয়েকজন বন্ধুদের ককাছ থেকে জিঞ্জেস করলাম যে, কতাদের কার কবাবা কি করে। অনেকেই বলল ঔষধের কদোকান, মুদির দোকানক, শাড়ির দোকান, ককসমেটিকস এর দোকান ইত্যাদি পেশায় কনিয়োজিত থাকে। তাদের অভিভাবকদের সবগুলো কঅর্থনৈতিক কাজ ব্যবসায়ের কঅন্তর্ভূক্ত হবে যদি তারা কজীবিকা নির্বাহ ও মুনাফার কআশায় উক্ত কাজগুলো করে কথাকেন।
মূলত মুনাফা অর্জনের কলক্ষ্যে পরিচালিত অর্থনৈতিক ককর্মকান্ডকে ব্যবসায় বলে। কপরিবারের সদস্যদের জন্য কখাদ্য উৎপাদন করা, কহাস-মুরগি কপালন করা, সবজি কচায় করাকে ব্যবসায় কবলা যায় না। ককিন্তু যখন কোনো কৃষক মুনাফার কআশায় ধান চাষ ককরে বা সবজি চাষ ককরাকে ব্যবসায় বলে গণ্য কহবে। তবে মুনাফা অর্জনের কউদ্দেশ্যে পরিচালিত সকল অর্থনৈতিক কর্মকান্ড কব্যবসা বলে গণ্য হবে কযদি সেগুলো দেশের আইনে কবৈধ ও সঠিক উপায়ে পরিচালিত কহয়। ব্যবসায়ের আরও কিছু কবৈশিষ্ট্য আছে যা একে কঅন্য সব পেশা থেকে কআলাদা করেছে।
ব্যবসায়ের সাথে জড়িত পণ্য বা সেবার অবশ্যই আর্থিক মূল্য থাকতে হবে। ব্যবসায়ের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো এর সাথে ঝুঁকির সম্পর্ক। মূলত মুনাফা অর্জনের আশাতেই ব্যবসায়ী অর্থ বিনিয়োগ করে। ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডর মাধ্যমে মুনাফা অর্জনের পাশাপাশি অবশ্যই সেবার মনোভাব থাকতে হবে।
খ. বাবসায়ে বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করতে হবে।
উত্তর:
ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্য সমূহ:
১. উদ্যোগ গ্রহণ: উদ্যোগ খগ্রহণের মাধ্যমে ব্যবসায় খশরু হয়ে। যেকোনো খব্যবসায় প্রতিষ্ঠার জন্য এক বা একাধীক খব্যক্তি উদ্যোগ গ্রহণ খকরে থাকে। নতুন ব্যবসায় খশুরু করতে চাইলে খউদ্যোগ গ্রহণ করা খুবই খগুরুত্বপূর্ণ। উদ্যোগ হলো, ঝুঁকি খআছে জেনেও মুনাফার খআশায় কষ্টসাধ্য কাজে হাত দেয়া।
আর যিনি ব্যবসায় খউদ্যোগ নেন তাকে উদ্যোক্তা খবলা হয়। তাই উদ্যোগ ও উদ্যোক্তা খএকে অপরের সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত থাকে। খযে কোনো দেশের অর্থনৈতিক খউন্নয়নে উদ্যোগ ও উদ্যোক্তার খগুরুত্বপূর্ণ অপরিসীম। তাই খবলা হয়ে থাকে মানুষের বড় খগুণ হলো উদ্যোগ খগ্রহণ করা। আর উদ্যোগ খগ্রহণের মাধ্যমেই কেবল শিল্পসহ খঅন্যান্য খাতের উন্নয়ন সম্ভব।
২. মুনাফ লাভ: মুনাফা লাভ করা খব্যবসায়ের একটি প্রধান বৈশিষ্ট্যের খমধ্যে পড়ে। যেকোনো ব্যবসায় খপ্রতিষ্ঠান গড়ার মূল উদ্দেশ্যই খহলো মুনাফা অর্জন খকরা। ব্যবসায় একটি ঝুঁকিমূলক খকর্মকাণ্ড, যেখানে খমুনাফা হতে পারে আবার খনাও হতে পারে খঅর্থাৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে থাকে। খআর মুনাফাকে ব্যবসায়ের ঝুঁকি খগ্রহণের পুরুষ্কার স্বরুপ বিবেচনা করা হয়। খসুতরাং, যেকোনো ব্যবসায়ের সকল খকর্মকাণ্ড মুনাফা অর্জনের খউদ্দ্যেশ্যে পরিচালিত হতে হবে খতা না হলে এটি খব্যবসাযের অন্তর্ভুক্ত হবে না।
৩. ঝুঁকি ও অনিশ্চয়তা: ব্যবসায়ের সাথে ঝুঁকি খও অনিশ্চয়তা ওতপ্রোতভাবে জড়িতখ। সব ধরণের খব্যবসায়েই ঝুঁকি বিদ্যমান থাকে, খযদি কোনো ব্যবসায়ে খঝুঁকি না থাকে তাহলে খতা ব্যবসায় খবলে গণ্য হবে না। খঝুঁকি হলো প্রত্যাশিত কোনো খকিছু অর্জন না হওয়া খবা আর্থিক ক্ষতির সম্ভাবনা। খআর অন্যদিকে, অনিশ্চয়তা হলো খপ্রত্যাশা যে করছি তা খহতেও পারে নাও খহতে পারে।
যদিও আমরা ঝুঁকির বিপরীতে খবিমা গ্রহণ করে এর খক্ষতির মাত্রা কমাতে খপারি। কিন্তু অনিশ্চয়তার ক্ষেত্রে খকোনো ধরনের বিমা গ্রহণ খকরার সুযোগ নাই। খঝুঁকিকে পরিমাপ করা যায়, এর খবিপরীতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া খযায়।
৪. অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড: সকল গব্যবসায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে গজড়িত থাকে। ব্যবসায়ের সকল গধরনের লেনদেন ও পরিচালনার গকাজে অর্থের ব্যবহার করা গহয়। সুতরাং, যদি কোনো উদ্যোগ গঅর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত থাকে গতাহলে তা ব্যবসায় বলে গবিবেচিত হবে। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড গব্যবসায়ের একটি অন্যতাম বৈশিষ্ট্যগ।
৫. মূলধন: যেকোনো গব্যবসায়ের শুরু করার গজন্য মূলধন প্রয়োজন, গঅর্থাৎ মূলধন ব্যবসাযের গপ্রাণশক্তি হিসেবে কাজ করে। ব্যবসায়ের গমূলধন সংগ্রহ করাও ব্যবসায়ের একটি গগুরুত্বপূর্ণ কাজ। ব্যবসায়ীগণ ব্যবসাযের গমূলধন সংগ্রহ করে থাকে তাদের গনিজস্ব তহবিল থেকে, ঋণ গগ্রহণের মাধ্যমে বা অন্য গকোনো উৎস হতে।
৬. বৈধতা: প্রতিটি ব্যবসায় গঅবশ্যই বৈধতা হতে হবে গকেননা অবৈধ কর্মকাণ্ডকে ব্যবসায় গবলে বিবেচিত হয় না। তাই ব্যবসায়ের সকল গকর্মকাণ্ডকে বৈধ উপায়ে সম্পাদন গকরতে হয়। যদি কেউ গঅসৎ পথ অবলম্বন ও গঅবৈধ উপায়ে মুনাফ অর্জন করে গতাহলে তার কাজকে ব্যবসায় গবলা যাবে না। যেমনগ: চোরাচালান, অবৈধ গঅস্ত্র, চাঁদাবাজি ইত্যাদি।গ
৭. সংগঠন: ব্যবসায়ের লক্ষ্য অর্জনের জন্য যখন কিছু ব্যক্তি একত্রিত হয় এবং ধারাবাহিকভাবে ব্যবসায়ের সকল কর্মকাণ্ড দক্ষতার সাথে সমন্বয় সাধন করার কাজে নিয়োজিত থাকে তখন তাকে সংগঠন বলা হয়।
৮. ক্রেতা এবং বিক্রেতা: প্রতিটি ব্যবসায়ের লেনদেনের ক্ষেত্রে কমপক্ষে দুটি পক্ষ জড়িত থাকে যেমন: ক্রেতা এবং বিক্রেতা। ব্যবসায়ে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে চুক্তির মাধ্যমে পণ্যদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় হয়ে থাকে।
৯. লেনদেনের পৌনঃপুনিকতা: যেকোনোগ ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে লেনদেন গবারে বারে বা গঅব্যাহতভাবে সম্পাদিত হয়। যেমনগ: একজন আম গব্যবসায়ী ‍যিনি নিয়মিতভাবে আম গক্রয় করেন এবং বিক্রি গকরেন। সুতরাং তিনি গতার ব্যবসায়ে সবসময় আম ক্রয়-গবিক্রয়ের কাজের সাথে জড়িত গথাকেন। কিন্তু কেউ যদি মাঝেমধ্যে গতার গাছের আম বাজারে নিয়ে বিক্রি করেনগ, সবসময় ক্রয়-বিক্রয়ের গসাথে জড়িত থাকেন না, গতাহলে তাকে ব্যবসায়ী বলা গযাবে না।
১০. সামাজিক দায়বদ্ধতা: ব্যবসায়েরগ ক্ষেত্রে সামাজিক দায়বদ্ধতা গরক্ষা করা ব্যবসায়ের একটি অন্যতম গবৈশিষ্ট্য। জনগণের ক্ষতি হয় গএমন কোনো ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান গপরিচালনা করা যাবে না। তাছাড়া ব্যবসায়ীরা গতাদের সামাজিক দায়বদ্ধতা সম্পর্কে খুব গসচেতন থাকে। ব্যবসায়ীরা ব্যবসায়ের গপাশাপাশি সমাজের বিভিন্ন ধরনের গউন্নয়নমূলক কাজের সাথে জড়িত থাকেনগ। সুতরাং ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সামাজিক গদায়বদ্ধতা রক্ষা করা একটি গগুরুত্বপূর্ণ কাজ।

গ. উদ্যোক্তার গুণাবলি পয়েন্ট আকারে ব্যাখ্যা করতে হবে
Management System International (MSI)-এর গবেষক David Mc. Lelland -র নেতৃতে এক দল গবেষক বিশ্বব্যাপী ব্যাপক গবেষনায় জানতে পেরেছে যে মোট ১০ টি প্রধান বৈশিষ্ট কোন ব্যক্তিকে সফল উদ্যোক্তা হতে সহায়তা করে –
১. সুযোগ সন্ধান: ব্যবসা সংক্রান্ত নতুন নতুন সুযোগ দেখা । এ গুলির উপর কাজ করা এবং তা বাস্তবায়ন করা । আর্থিক সংস্থান, যন্ত্রপাতি, জমি, কর্মসংস্থান বা অন্যান্য সাহায্য লাভের জন্য লক্ষ্যনীয় সুযোগ গুলি ব্যবহার করা ।
২. অধ্যবসায়: যে কোন বাঁধা দূর করা অথবা যে কোন চ্যালেনজ মোকাবিলা করতে বার বার পদক্ষেপ নেয়া। লক্ষ্যে পৌছানোর জন্য বিকল্প পথ সন্ধান করা।
৩. কাজের প্রতিশ্রুতি রক্ষা: গ্রাহকদের জন্য কাজ সম্পন্ন করতে গিয়ে উদ্ভুত সমস্যাবলীর দায়-দায়িত্ব নেয়া। শ্রমিকদের সাথে কাজে লেগে থাকা এবং তাদের মাধ্যমে কাজগুলি করিয়ে নেয়া যাতে গ্রাহকগণ সর্বদা সন্তুুষ্ট থাকেন।
৪. গুনগতমান ও দক্ষতার চাহিদাঃ  উন্নত, দ্রুত এবং সস্তায় পন্য সরবরাহের জন্য পথ খুজে বের করা। অতীতের সকল উৎকর্ষতাকে হার মানিয়ে নতুন এবং সবচাইতে ভালো খরিদ্দার যে রকম চায় সেই রকম ভাবে পন্য তৈরীর চেষ্টা করা ।
৫. ঝুঁকি গ্রহনঃ ঝুঁকি গ্রহন করার মনোভাব থাকতে হবে । একজন সফল উদ্যোক্তার  নিজের মত অনুযায়ী সহনীয়/পরিমিত ঝুঁকি গ্রহন করবে।
৬. তথ্য অনুসন্ধান: ব্যক্তিগতভাবে গ্রাহক, সরবরাহকারী ও প্রতিযোগী সম্পর্কে তথ্যানুসন্ধান করা । তথ্য সংগ্রহের জন্য নিজের এবং ব্যবসায়িক বিভিন্ন ব্যক্তি বা নেটওয়ার্ক কাজে লাগানো
৭.   লক্ষ্য নির্ধারন: পরিস্কার ও দীর্ঘ মেয়াদী লক্ষ্য নির্ধারন  করা । একজন সফল উদ্যোক্তা দীর্ঘমেয়াদী  লক্ষ্যে পৌছানোর জন্য নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে স্বল্প মেয়াদী পরিকল্পনা করা ।
৮. সুষ্ঠু পরিকল্পনা ও পরিচালনা: লক্ষে পৌছানোর জন্য বাস্তব সম্মত পরিকল্পনা করা এবং ধাপে ধাপে তা বাস্তবায়িত করা। বড় কোন কাজকে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে ছোট ছোট অংশে করে ফেলা ।
৯. উদ্বুদ্ধকরণ ও সম্পর্কস্থাপন: অন্যকে অনুপ্রাণিত বা প্রভাবিত করতে সঠিক কৌশল ঠিক করা । নিজের উদ্দেশ্য অর্জনের জন্য ব্যবসায়িক ও ব্যক্তিগত যোগসূত্রসমূহ ব্যবহার করা ।
১০.  আত্মবিশ্বাসঃ নিজের ক্ষমতা ও যাবতীয় গুনাবলীর উপর শক্ত বিশ্বাস রাখা । কোন কঠিন কাজ বা চ্যালেন্জ মোকাবিলা করার জন্য নিজের ক্ষমতার উপর আস্থা রাখা ।
ঘ. দেশের উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ব্যবসায় উদ্যোগের ভূমিকা মূল্যায়ন করতে হবে

Class 9 5th week Geography and Environment Assignment 2022

Class Nine 5th Week Geography and Environment Subject Assignment 2022
Class 9 5th week Geography and Environment Assignment 2022

Class 9 5th week Geography and Environment Assignment Answer 2022

Class Nine 5th Week Geography and Environment Subject Assignment 2022
উত্তর সমূহ
পৃথিবীর বাহ্যিক গঠনের বর্ণনা করতে হবে
পৃথিবীর অভ্যন্তরীন গঠন অনেকটা পেয়াজের মতো বিভিন্ন খোলসাকৃতির স্তরে বিন্যস্ত। এই স্তরগুলোকে তাদের বস্তুধর্ম এবং রাসায়নিক ধর্ম দিয়ে সংজ্ঞায়িত করা যায়।
পৃথিবীর বাহিরের দিকে রয়েছে সিলিকেট দিয়ে তৈরি কঠিন ভূত্বক বা ক্রাস্ট, তারপর অত্যন্ত আঠালো একটি ভূ-আচ্ছাদন বা ম্যান্টল, একটি বহিঃস্থ মজ্জা বা কোর যেটি ম্যান্টলের চেয়ে তুলনামূলকভাবে কম আঠালো এবং সব শেষে একটি অন্তঃস্থ মজ্জা।
পৃথিবীর অভ্যন্তরীন গঠন বৈজ্ঞানিক ভাবে বোঝার জন্য কোন স্থানের ভূসংস্থান এবং গভীরতা, বহিঃস্থ এবং অন্তঃস্থ শিলাস্তর, আগ্নেয়গিরি এবং অগ্ন্যুৎপাত, মহাকর্ষীয় এবং তরিৎচুম্বকীয় ক্ষেত্রের পরিমাপ, ভূকম্পন তরঙ্গের বিশ্লেষণ ইত্যাদি বিষয় পর্যবেক্ষণ করা হয়।
পৃথিবীর গঠনকে দু’ভাবে বর্ণনা করা যায়। এক- যান্ত্রিক উপায়ে যেমন, বস্তুবিদ্যা, অথবা দুই- রাসায়ানিক ভাবে। যান্ত্রিক ভাবে দেখলে, পৃথিবীকে অশ্বমন্ডল, আস্থেনোমণ্ডল, মেসোমণ্ডল, বহিঃস্থ মজ্জা এবং অন্তঃস্থ মজ্জা এই ক’টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে।
আর রাসায়নিক ভাবে পৃথিবীকে ভাগ করা হয়েছে ভূত্বক, উপরস্থ ভূ-আচ্ছাদন, নিম্নস্থ ভূ-আচ্ছাদন, বহিঃস্থ মজ্জা এবং অন্তঃস্থ মজ্জা এই ক’টি ভাগে। ভূপৃষ্ঠ থেকে পৃথিবীর ভূ-তাত্ত্বিক উপদানগুলোর গভীরতা নিচের তালিকায় দেখানো হয়েছে।
পৃথিবীর এই ধরনের স্তর বিন্যাস পরোক্ষ ভাবে বিভিন্ন সময়ে ভূমিকম্পের কারণে সৃষ্ট ভূ-কম্পন তরঙ্গের প্রতিফলন এবং প্রতিসরণ দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে। ভূ-মজ্জার কোন একটি অংশে যখন শিয়ার ওয়েভের চেয়ে ভিন্ন গতিবেগের ভূ-কম্পন তরঙ্গ প্রবাহিত হয়, তখন সাধারণত শিয়ার ওয়েভ বা মাধ্যমিক ভূ-তরঙ্গ ভূ-মজ্জার ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হতে পারে না।
আলো যে ভাবে প্রিজমের মধ্য দিয়ে যাবার সময় বেঁকে যায়, সেভাবে পৃথিবীর বিভিন্ন স্তরে ভূ-কম্পন তরঙ্গ তার গতিবেগের ভিন্নতার কারণে প্রতিসৃত হয়; এই প্রতিসরণ হয়ে থাকে স্নেলের সূত্র অনুযায়ী। একইভাবে প্রতিফলনের কারণে ভূ-কম্পন তরঙ্গের গতিবেগ অনেক বেশি বেড়ে যায়, ঠিক যেভাবে আয়নায় প্রতিফলিত হয়ে আলো ছড়িয়ে যায় অনেক দিকে।

ভূমিরূপের ধারণাও শ্রেণিবিভাগ বর্ণনা করতে হবে


পৃথিবীর প্রধান ভূমিরূপের গঠন ও বৈশিষ্ট্যের ব্যাখ্যাকরতে হবে।
ভূমিরূপ বা ল্যান্ড ফর্ম কে আক্ষরিক অর্থে ভূমির গঠনগত আকৃতিকে বলা হলেও ব্যাপক অর্থে সমগ্র পৃথিবী ব্যাপী অবস্থানরত বিভিন্ন ধরনের ভূমি ভাগের আকৃতি, উচ্চতা, বন্ধুরতা, ঢাল, প্রভৃতি অবয়ব ভূমিরূপ নামে পরিচিত।
প্রসঙ্গত অগ্ন্যুৎপাত ভূমিকম্প সূর্যরশ্মি নদ-নদী সমুদ্রস্রোত বাযু হিমবাহ ভূমিরূপ সৃষ্টিতে সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণ করে। উদাহরণস্বরূপ পাহাড়-পর্বত, মালভূমি,সমভূমি। ভূমিরূপকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে যথা পর্বত বা মাউন্টেইন, মালভূমি ও সমভূমি।
এই প্রত্যেকটি ভূমিরূপ কে আবার অনেক ভাগে ভাগ করা হয়েছে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০০ মিটার বা তারও বেশি উচ্চতাবিশিষ্ট বহুদূর বিস্তৃত শৃঙ্গযুক্ত খাড়া ঢালের শিলাময় স্তুপ পর্বত বা মাউন্টেন নামে পরিচিত।
যেমন হিমালয় সাতপুরা ভিসুভিয়াস আরাবল্লী, এই চারটি পর্বত হল পর্বতের বিভিন্ন ভাগের উদাহরণ। পর্বত কে চারটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে যথাঃ ভঙ্গিল পর্বত, স্তুপ পর্বত, আগ্নেয় পর্বত, ক্ষয়জাত পর্বত।
ভঙ্গিল পর্বতঃ ভূপৃষ্ঠের কোমল পাললিক শিলা স্তর গিরিজনি প্রক্রিয়ায় পার্শ্ব চাপে ভাজপ্রাপ্ত হয়ে যে পর্বত সৃষ্টি করে তাকে ভঙ্গিল পর্বত বলে। যেমন হিমালয়, আল্পস, রকি, আন্দিজ, ইত্যাদি।
আগ্নেয় পর্বতঃ প্রবল ভূ আলােড়ন এর ফলে ভূ-অভ্যন্তরের উত্তপ্ত তরল ও বিভিন্ন গ্যাস যুক্ত ম্যাগমা ভূপৃষ্ঠের কোন দুর্বল স্থান কিংবা ফাটল দিয়ে লাভা রূপে নির্গত হয়ে শঙ্কু বাস্তবে নয় যে পর্বত সৃষ্টি করে, তাকে আগ্নেয় পর্বত বলে।
প্রসঙ্গত, লাভা সঞ্চয় এর মাধ্যমে আগ্নেয় পর্বত গঠিত হয় বলে, একে সঞ্চয়জাত পর্বত ও বলে। যেমন ভারতের আন্দামান সংলগ্ন ব্যারেন, জাপানের ফুজিয়ামা, ইতালির ভিসুভিয়াস, প্রভৃতি।
আগ্নেয় পর্বতের সৃষ্টি প্রক্রিয়াঃ প্রবল ভূ-আলােড়ন, পাতের সঞ্চালন কিংবা ভূমিকম্পের দ্বারা ভূগর্ভের ৮০১৬০ কি.মি. গভীরতায় থাকা উত্তপ্ত তরল ও গ্যাসীয় বাষ্প যুক্ত ম্যাগমার চাপের ভারসাম্য নষ্ট হলে সেটি দ্রুত স্থিতিস্থাপকতা হারিয়ে ফেলে।
তখন সেই মেঘনা ভূগর্ভের একটি নির্দিষ্ট পথ ধরে ভূপৃষ্ঠস্থ দুর্বল স্থান কিংবা ফাটলের মধ্যে দিয়ে ধীর গতিতে কিংবা বিস্ফোরণের দ্বারা ছাই ভস্ম কিংবা ছােট ছােট আগ্নেয় পদার্থের টুকরাের সমন্বয় এ ভূপৃষ্ঠের বাইরে সঞ্চিত হয়ে আগ্নেয় পর্বত সৃষ্টি করে।
মালভূমিঃ
সমুদ্র সমতল থেকে ৩০০ মিটার বা আরাে কিছুটা উর্ধ্বে অবস্থিত খাড়া ঢাল যুক্ত সুবিস্তৃত তরঙ্গায়িত বা সামান্য বন্ধুর ভূভাগ মালভূমি নামে পরিচিত। প্রসঙ্গত আকৃতিগত ভাবে মালভূমি অনেকটা টেবিলের ন্যায় দেখতে হওয়ায় একে টেবিল ল্যান্ড বলে।
যেমন ভারতের দাক্ষিণাত্য ও ছােটনাগপুর মালভূমি, তিব্বতের পামির মালভূমি ইত্যাদি। মালভূমি সৃষ্টির কারণঃ মালভূমি সৃষ্টি হওয়ার পেছনে সাধারণত তিনটি কারণ দায়ী। এগুলি হলাে
১) ভূ আলােড়ন ও পাত সঞ্চরণঃ পাত সঞ্চরণ ও তত্ত্বানুসারে পাত গুলির চলন এর ফলে পৃথিবী পৃষ্ঠের প্রাচীন ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে মহাদেশীয় বা শিল্ড মালভূমির গঠন করে। যেমন আরব মালভূমি, কানাডিয়ান শিল্ড প্রভৃতি। পাত সঞ্চারণের ফলে ভঙ্গিল পর্বত সৃষ্টির সময় পর্বতের মাঝের নিচু ও সমতল ভূমি উঁচু হয়ে মালভূমি সৃষ্টি হয়। এগুলি পর্বত দ্বারা বেষ্টিত।
যেমন তিব্বত মালভূমি, ইরানের মালভূমি প্রভৃতি। অনেক সময় ভূ-আলােড়ন এর ফলে ভূপৃষ্ঠের বিস্তৃত সুউচ্চ ভূভাগ একদিকে হেলে পড়ে ও মালভূমিতে পরিণত হয়। যেমন ভারতের উপদ্বীপীয় মালভূমি। ভূ আলােড়ন এর ফলে সৃষ্ট চ্যুতির পাশের কোন অংশ অনেক সময় উথিত হয়ে মালভূমি তে পরিণত হয় ।যেমন ফ্রান্সের সেন্ট্রাল ম্যাসিফ মালভূমি।
২) ক্ষয় সাধনঃ নদী, বাষু হিমবাহ, সমুদ্র তরঙ্গ, আবহবিকার প্রভৃতি প্রাকৃতিক শক্তি দ্বারা কোন উচ্চভূমি বা পর্বতমালা ক্ষয়প্রাপ্ত হয় মালভূমির আকার ধারণ করে। যেমন মধ্য ভারতের বুন্দেলখন্ড ও বাঘেলখন্ড মালভূমি।
৩) সঞ্চয় কাজঃ নিঃসারী অগ্ন্যুৎপাতের ফলে ভূগর্ভস্থ ম্যাগমা ভূপৃষ্ঠের বাইরে এসে লাভা রূপে সঞ্চিত হয়ে মালভূমি তে পরিণত হয়। যেমন ভারতের দাক্ষিণাত্য মালভূমি বা ডেকানট্রাপ। *শুষ্ক অঞ্চলে বালুরাশি জমা হয়ে মালভূমি সৃষ্টি হয়। যেমন আফ্রিকার সাহারা মালভূমি। *অতি শীতল অঞ্চলে বরফ জমে উঁচু হয়ে মালভূমি সৃষ্টি করে। যেমন আন্টাটিকা মালভূমি ও গ্রীনল্যান্ড মালভূমি।
সমভূমিঃ
সমুদ্রপৃষ্ঠের একই সমতলে বা সামান্য উঁচুতে, তবে ৩০০ মিটারের কম উঁচুতে অবস্থিত প্রায় সমতল সমতল বিস্তীর্ণ স্থলভাগকে সমভূমি বলে। যেমন ভারতের গঙ্গা নদী বিধৌত সমভূমি অঞ্চল, রাশিয়ার সাইবেরিয়ান সমভূমি।

১) পলি গঠিত সমভূমিঃ বন্যার সময় নদীর মধ্য ও নিম্নগতিতে নদীর উভয় পার্শ্বে পলি বালি কাঁকর ইত্যাদি সঞ্চিত হয়ে যে সমভূমি গঠন করে তাকে পলি গঠিত সমভূমি বলে। বর্ষাকালে নদীর দু’কূল ছাপিয়ে বন্যার সৃষ্টি হলে বন্যার জলের সঙ্গে বাহিত পলি, বালি, নুড়ি কাঁকর, কাঁদা উভয় তীরের নিম্নভূমিতে সঞ্চিত হয়।
বছরের পর বছর এইভাবে পলি সঞ্চিত হয়ে নিচু জায়গা ভরাট হয়ে উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়ে সমভূমি তে পরিণত হয়। যেমন গাঙ্গেয় সমভূমি, ব্রহ্মপুত্র সমভূমি প্রভৃতি।
২) লােয়েস সমভূমিঃ মরুভূমির বালি বায়ুপ্রবাহের দ্বারা বহুদূর উঠে গিয়ে সঞ্চিত হয়ে যে সমভূমি সৃষ্টি হয় তাকে লােয়েস সমভূমি বলে। লােয়েস শব্দের অর্থ সূক্ষ্ম পলি বা স্থানচ্যুত বস্তুকণা। সাধারণত ০.০৫ মিলিমিটারের কম ব্যাস যুক্ত বালিকণা সহজেই প্রবল বায়ু প্রবাহের সঙ্গে বাহিত হয়।
এই বাযুর গতি কমে গেলে বা বাযু বৃষ্টিপাতের সম্মুখীন হলে বাযুস্থিত বালিকণা অবক্ষিপ্ত হয় এবং লােয়েস সমভূমি গড়ে ওঠে। যেমন মধ্য এশিয়ার গােবি মরুভূমি বালি উড়ে গিয়ে চীনের হােয়াংহাে নদী অববাহিকায় সঞ্চিত হয় লােয়েস সমভূমি গড়ে উঠেছে।
৩) লাভা সমভূমিঃ ভূপৃষ্ঠের কোন নিম্ন অংশে ক্রমাগত লাভা সঞ্চিত হয়ে যে সমতল ভূমির সৃষ্টি হয় তাকে লাভা সমভূমি বলে। ভূত্বকের কোন দুর্বল অংশ বা ফাটল দিয়ে ভূগর্ভের উত্তপ্ত ম্যাগমা ভূপৃষ্ঠের বাইরে বেরিয়ে এসে লাভা রূপে শীতল ও কঠিন হয়ে সঞ্চিত হয়। এইভাবে ক্রমাগত লাভা সঞ্চয়ের ফলে লাভা সমভূমি গড়ে উঠেছে। যেমন ভারতের দাক্ষিণাত্য মালভূমির উত্তরে মালব সমভূমি।
৪) বদ্বীপ সমভূমিঃ নদীর মােহনায় অতিরিক্ত পলি সঞ্চিত হয় মাত্রাহীন ব আকৃতির সমভূমি গড়ে ওঠে। যেমন গঙ্গা নদীর মােহনায় সৃষ্ট বদ্বীপ সমভূমি।
৫) হ্রদ সমভূমির সৃষ্টিঃ কোন নদীবাহিত নুড়ি, বালি, কাদা, পলি হ্রদে সঞ্চিত হয়ে হ্রদ ভরাট হয়ে গেলে হ্রদ সমভূমি গঠিত হয়। যেমন উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তাল সমভূমি অঞ্চল।
৬) হিমবাহ সমভূমিঃ হিমবাহের দ্বারা সঞ্চিত নুড়ি , কাকর জমে এই প্রকার সমভূমি সৃষ্টি হয়। যেমন উত্তর আমেরিকার প্রেইরি সমভূমি।
৭) ক্ষয়জাত সমভূমিঃ নিচু মালভূমি বা পার্বত্য অঞ্চল বহু বছর ধরে বিভিন্ন প্রাকৃতিক শক্তি দ্বারা ক্ষয়প্রাপ্ত হয় সমপ্ৰায় ভূমি সৃষ্টি করে। যেমন ভারতের ছােটনাগপুর মালভূমির কিছু কিছু অংশ।

Class 9 Assignment 5th week Answer

Class 9 Assignment 5th Answer will be created by the students themselves. If necessary, they can be taken the help from teachers, guardians or anyone else. Necessary information can also be collected from the internet.

Before writing the Assignments Answers on Bangla and Information and Communications Technology ICT subjects, students must read and practice the chapter allotted for the assignment.

Class 9 Bangla Assignment 5th week Answer

Post a Comment

1 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.
Post a Comment

buttons=(Accept !) days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !
To Top